২রা এপ্রিল, ২০২০ ইং, বৃহস্পতিবার

একুশে পদক প্রাপ্ত মরহুম আব্দুল জব্বার গণমানুষের নেতা ছিলেন —-পররাষ্ট্র মন্ত্রী

আপডেট: মার্চ ৩, ২০২০

ফেইসবুক শেয়ার করুন

ডেক্স রিপোর্ট ঃ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ, কে আব্দুল মুমিন এমপি বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের দূর্দিনে যারা ত্যাগ স্বীকার করেছেন তাদেরকে খুঁজে খুঁজে বের করে তাদেরসহ পরিবারকে সম্মানিত করছেন। মঙ্গলবার বিকেলে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধুর ¯েœহধন্য, কুলাউড়ার সাবেক এমপি মরোনোত্তোর একুশে পদকপ্রাপ্ত ‘মরহুম আব্দুল জব্বারের জীবন ও কর্ম’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তেব্যে তিনি একথা বলেন।
আব্দুল জব্বার স্মৃতি সংসদের প্রধান উপদেষ্টা, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সিলেট জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্টিত সভায় পররাষ্ট্র মন্ত্রী আরো বলেন, আব্দুল জব্বারের মতো সৎ, নির্ভিক, কর্মিবান্ধব ও নি:স্বার্থ একজন কর্মিকে মরনোত্তর একুশে পদক দিয়ে সম্মানিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আব্দুল জব্বার রাজনীতি করেছেন লোভ লালসার উর্দ্ধে থেকে। তিনি গণমানুষের নেতা ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, বৃহত্তর সিলেটে গণমানুষের স্বার্থহীন ও পরোপকারী দু’নেতা ছিলেন, একজন পীর হাবিবুর রহমান আর একজন মরহুম আব্দুল জব্বার। আব্দুল জব্বার একজন খাটি কৃষক। কৃষিকাজের পাশাপাশি ১৯৫৭ সালে তিনি কিশোর বয়সে রাজনীতিতে যোগ দেন। বঙ্গবন্ধুর ¯েœহধন্য এ নেতা জীবনের শেষ মূহুর্ত পর্যন্ত আওয়ামীলীগকে সু-সংগঠিত করতে কাজ করে গেছেন। বক্তব্যের শুরুতে মন্ত্রী আব্দুল জব্বারকে নিয়ে দেওয়ান ফরিদ গাজীর স্মৃতিচারণ লেখার কিছু অংশ পাঠ করেন।
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, মৌলভীবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সম্পাদক ফজলুর রহমান, সিলেট মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চেীধুরী, কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রেনু, সিলেট বিএনএ’র সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ রুকন উদ্দিন, ছাতক উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান মোমিন চৌধুরী, বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান এসএম নুনু মিয়া। আরো বক্তব্য রাখেন, সিলেট জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট রণজিৎ সরকার, উপ-দপ্তর সম্পাদক জগলু চৌধুরী, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর আজাদুর রহমান আজাদ, সিলেট জেলা সেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক জালাল উদ্দিন কয়েছ, সিলেট জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক সেলিম উদ্দিন সেলিম, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগ নেতা কামাল হাসান, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা সাইফুল আলম সিদ্দিকী, কুলাউড়া উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফাতেহা ফেরদৌস চৌধুরী পপি, কুলাউড়া যুবলীগের সভাপতি আব্দুস শহীদ, সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক মঈনুল ইসলাম সবুজ, সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি এনামুল হক মিসবাহ, কুলাউড়ার বাহ্মণবাজার ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক মমদুদ হোসেন প্রমুখ।

উল্লেখ্য কুলাউড়া উপজেলার পৌরসভার আলালপুর নিবাসী মরহুম আব্দুল জব্বার ৬২ এর শিক্ষা আন্দোলন, ৬৬ এর ছয়-দফা, ৬৯ এর গণ অভ্যুত্থান, ৭০ এর নির্বাচন ও ৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও রণাঙ্গণের যোদ্ধা ছিলেন। এছাড়া তিনি বঙ্গবন্ধু পরিষদ ও মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাকালীন কেন্দ্রীয় কমিটি, রেডক্রিসেন্ট সোসাইটি, ঘাতক দালাল নিমূল কমিটি এবং কুলাউড়া থানা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৯২ সালের ২৮ আগস্ট ৪৭ বছর বয়সে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।
মরহুমের সন্তানদের মধ্যে এক পুত্র মোঃ আবু জাফর রাজু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রটোকল অফিসার-২ পদে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে কর্মরত এবং অপর পুত্র কুলাউড়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আসম কামরুল ইসলাম কুলাউড়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন।

665 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
error: কপি করছেন কেন ? আমি আপনার আইপি সেভ করলাম।
Frank Dinar