৬ই ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং, শুক্রবার

কুলাউড়ায় জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস লাইনচ্যূত। সিলেট রেলপথে ঘন ঘন ট্রেন দুর্ঘটনায় যাত্রীদের মধ্যে চরম আতংক

আপডেট: জুলাই ১৯, ২০১৯

ফেইসবুক শেয়ার করুন

এম শাকিল রশীদ চৌধুরী ঃ
সিলেট রেলপথের কুলাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনের আউটার সিগ্যানালের কাছে গতকাল শুক্রবার দুপুরে ঢাকাগামী আন্তঃনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যখানের ১টি বগীর ২টি চাকা লাইনচ্যুত হলে সিলেটের সাথে সাময়িকভাবে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। রেলওয়ে সুত্রে জানা যায়, সিলেট স্টেশন থকে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০ টায় ছেড়ে আসা ঢাকাগামী আন্তঃনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেন কুলাউড়া জংশন স্টেশনের আউটার সিগ্যানালের কাছে দুপুর ১২ টায় ট্রেনের মধ্যখানের ১টি বগীর ২টি চাকা লাইনচ্যুত হয়। পরে ট্রেনটি লাইনচ্যুত বগী নিয়ে ষ্টেশনের প্লাটফরমে প্রবেশ করে। ট্রেন দূর্ঘটনার খবর পেয়ে দ্রুত কুলাউড়া রেলওয়ে জংশনের উদ্ধারকারী দল হাইড্রোলিক ভ্যান নিয়ে ষ্টেশনে পৌছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। উদ্ধারকারী দল ২ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে দূর্ঘটনা কবলিত বগীকে ট্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন করে কুলাউড়া ষ্টেশনে ফেলে রেখে অবশিষ্ট যাত্রীবাহী বগীগুলো নিয়ে দুপুর ২ টায় ঢাকার উদ্দ্যেশে ট্রেনটি কুলাউড়া স্টেশন ত্যাগ করে।
জয়ন্তিকা ট্রেন দূর্ঘটনার কারনে সাময়িকভাবে ২ ঘন্টা রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ায় চট্টগ্রামগামী পাহাড়িকা, সিলেটগামী পারাবত এক্সপ্রেস ট্রেনসহ লোকাল ট্রেন বিভিন্ন স্টেশনে আটকা পড়ায় শত শত যাত্রীরা সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হন।
উল্লেখ্য গত মাসের ২২ জুন দিবাগত রাতে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া আন্ত:নগর উপবন এক্সপ্রেস কুলাউড়া উপজেলার বরমচাল স্টেশনের নিকটবর্তী বড়ছড়া ব্রিজে দুর্ঘটনায় পতিত হয়ে ট্রেনটির পেছনের ৬টি বগি লাইনচ্যুত হয়ে বড়ছড়া ব্রীজের ছড়ায় পড়ে যায়। দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে ৪ জনের মৃত্যু হয় এবং শতাধিক যাত্রী আহত হন। এছাড়া গত ৭ জুলাই সন্ধ্যা ৬ টায় সিলেটগামী আন্তঃনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে কুলাউড়ার মনু রেলস্টেশন সংলগ্ন এলাকায় একটি গরুর সাথে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ইঞ্জিনের সম্মুখের ভ্যাকুয়াম পাইপ ফেটে যায়। ফলে মনু স্টেশন এলাকায় ট্রেনটি আটকা পড়ে। পরে ইঞ্জিনের ভ্যাকুয়াম পাইপ মেরামত করে সন্ধ্যা ৭ টায় ট্রেনটি মনু স্টেশন থেকে সিলেটের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। এতে প্রায় ১ ঘন্টা ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ থাকায় ট্রেনটির যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হন ।
সিলেট রেলপথে নিরাপদ ট্রেন ভ্রমন সাম্প্রতিককালে ঘন ঘন দুর্ঘটনার কারনে ঝুকিপুর্ন হয়ে পড়ায় যাত্রীদের মধ্যে চরম আতংক দেখা দিয়েছে। পুরাতন ইঞ্জিন ও বগী নিয়ে চলাচলকারী আন্তঃনগর ট্রেনসহ অন্যান্য ট্রেন প্রায় প্রতিদিন পথিমধ্যে ছোট-বড় দুর্ঘটনায় পতিত হওয়ায় যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এমনিভাবে একের পর এক ট্রেন দুর্ঘটনার ফলে ট্রেনযাত্রীরা গন্তব্যে পৌছার পুর্বে দিনে ও রাত্রিকালে পথিমধ্যে আটকা পড়ে সীমাহীন ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। নিরাপদ ট্রেন ভ্রমনের ভুক্তভোগীরা ঘন ঘন ট্রেন দুর্ঘটনার জন্য সিলেট রেলপথে পুরাতন ইঞ্জিন ও বগী ব্যবহারের পাশাপাশি ব্রীজ-রেল লাইনের যথাযথ সংস্কার কাজ না করা ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চরম দায়িত্বহীনতাকে দায়ী করছেন। এ ব্যাপারে রেল কর্তৃপক্ষ অবহেলিত সিলেট রেলপথে ট্রেন দুর্ঘটনার কবল থেকে যাত্রীদের জানমাল রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করে নিরাপদ ভ্রমনের নিশ্চয়তা প্রদান করবেন বলে ভুক্তভোগীরা আশাবাদ ব্যক্ত করছেন।

349 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন
Frank Dinar