১লা ডিসেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, মঙ্গলবার

কুলাউড়া শহরের সেই বাসার লাল পতাকা নামিয়ে হোম কোয়ারেন্টিনমুক্ত ঘোষনা

আপডেট: এপ্রিল ৭, ২০২০

ফেইসবুক শেয়ার করুন

অনি চৌধুরী :: করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) উপসগের্র সন্দেহ নিয়ে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন সেন্টারে স্ব-প্রণোদিত হয়ে ভর্তি হওয়া কুলাউড়া উপজেলা শহরের দু’জন রোগীর রিপোর্ট মঙ্গলবার পাওয়া গেছে। প্রাপ্ত রিপোর্টে উভয়ের শরীরে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) উপসর্গের কোন আলামত না পাওয়ায় তাদেরকে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মুক্ত ঘোষনা করা হয়। কুলাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ নুরুল হক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। উক্ত নেগেটিভ রিপোর্টের প্রেক্ষিতে কুলাউড়া উপজেলা প্রশাসন তাৎক্ষনিকভাবে মঙ্গলবার দুপুরে সেই বাসায় টানানো লাল পতাকা নামিয়ে উক্ত বাসাকে হোম কোয়ারেন্টিনমুক্ত ঘোষনা করা হয়।
উল্লেখ্য, গত রোববার সকালে কুলাউড়া টিটিডিসি এলাকার বাসিন্দা মরহুম অধ্যক্ষ আব্দুর রউফ এর মেয়ে সিলেট ওয়েমেন্স হাসপাতালের ইর্টানি ডাক্তার ফাতেমা রউফ ও ছেলে তানভীর শাওন করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) উপসগের্র সন্দেহ নিয়ে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন সেন্টারে স্ব-প্রণোদিত হয়ে ভর্তি হন। পরবর্তীতে শামসুদ্দিন হাসপাতালের করোনা আইসোলেশন সেন্টার থেকে রোববার রাতে তাদের দুজনের নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় পাঠানো হয়। এদিকে কুলাউড়া উপজেলা প্রশাসন রোববার রাত ১১ টায় টিটিডিসি এলাকার তাদের বাসায় লাল পতাকা টানিয়ে বাসার সবাইকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশনা প্রদান করেন। এনিয়ে উপজেলা জুড়ে এক আতংকের সৃষ্টি হয়। অবশেষে মঙ্গলবার ঢাকা থেকে তাদের উভয়ের করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মুক্ত রিপোর্ট আসার পর উপজেলার জনমনে সৃষ্ট আতংক ও সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটে।

1916 বার নিউজটি শেয়ার হয়েছে
  • ফেইসবুক শেয়ার করুন