জুন ৩০, ২০১৫ ১১:৪৯ অপরাহ্ণ

সমাবর্তন পাচ্ছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা


বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষার ইতিহাসে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ অবদান রয়েছে। একমাত্র জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হওয়ার কারণেই দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল পর্যন্ত উচ্চশিক্ষার বিস্তার ঘটছে সহজেই।

তবে প্রতিষ্ঠার পর থেকে আজঅবধি কোনো সমাবর্তনের (শিক্ষা সমাপনী সনদ প্রদান অনুষ্ঠান) আয়োজন করতে পারেনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবি দীর্ঘ দিনের। এবার এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আশা পূরণ হতে চলেছে।

প্রথমবারের মত প্রায় দেড় কোটির অধিক শিক্ষার্থী নিয়ে একসঙ্গে দেশের ৬৪ জেলায় সমাবর্তন অনুষ্ঠান করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। আগামি ২০১৬ সালে এ সমাবর্তন অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

সোমবার (২৯জুন) বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের অতিরিক্ত দায়িত্বে নিয়োজিত প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মুনাজ আহমেদ নূর বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ভবনের সম্মেলন কক্ষে কলেজ শিক্ষকদের ৯২তম ব্যাচের প্রশিক্ষণ কার্যক্রমের সমাপনী অনুষ্ঠানে সনদ বিতরণকালে সমাবর্তন অনুষ্ঠানের কথা জানান।

প্রসঙ্গত, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯২ সালে। গাজীপুর জেলার বোর্ডবাজারে ১১.৩৯ একর জমির ওপর বিশ্ববিদ্যালয়টির মূল ভবন। এছাড়া সারাদেশে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে সরকারি ও বেসরকারি ২ হাজার ১৫৪টি কলেজ রয়েছে। এর মধ্যে ৫৫৭টি কলেজে স্নাতক (সম্মান) পড়ানো হয়।

উচ্চশিক্ষার সুযোগ সবার জন্য সহজ করতেই এ প্রতিষ্ঠানটির এর পথচলা শুরু হয়েছিলো। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এর নানা সমস্যা এবং জটিলতা বাড়তে থাকে। বর্তমানে সেশনজট অন্যতম প্রধান সমস্যা।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানাগেছে, সেশনজটসহ অন্যান্য সমস্যা সমাধানের ব্যাপারে নানা পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে ভর্তি এবং শিক্ষার্থীদের রেজিষ্ট্রেশন প্রক্রিয়া অনলাইনে করার ব্যাবস্থা চালু করা হয়েছে। উচ্চ শিক্ষার অন্যতম অংশ সমাবর্তনের ব্যাপারেও ভাবা হচ্ছে। আশা করা হচ্ছে, আগামি ২০১৬ সালেই প্রায় দেড় কোটি শিক্ষার্থী নিয়ে সমাবর্তন অনুষ্ঠান করা সম্ভব হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

105 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ