জুন ১৯, ২০১৫ ৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ

জঙ্গিদের বিস্ফোরক সরবরাহ করে আটক ৪-


কুলাউড়া সংবাদ

১৯/০৬/২০১৫

বেশি লাভ তাই জঙ্গিদের হাতে তুলে দেন বিস্ফোরক

জঙ্গি সংগঠনের কাছে বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ ও বিস্ফোরক বিক্রি ও সরবরাহের অভিযোগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্টসহ চারজনকে আটক করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)।

আটককৃতরা হলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগের ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট গাজী মোহাম্মদ বাবুল; রাজধানীর টিকাটুলির এশিয়া সায়েন্টিফিকের দোকান মালিক রিপন মোল্লা; টিকাটুলির ওয়েস্টার্ন সায়েন্টিফিক কোম্পানির ম্যানেজার মহিউদ্দিন এবং একই এলাকার এফএম কেমিক্যাল অ্যান্ড সন্স’র দোকান মালিক মো. নাসির উদ্দিন।

গতকাল বৃহস্পতিবার তাদেরকে আটক করা হলেও পুলিশের পক্ষ থেকে বিষয়টি জানানো হয় শুক্রবার সকালে।

ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে শুক্রবার দুপুরে এ সংক্রান্ত এক সংবাদ সম্মেলনে ডিএমপির যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, গত ৭ জুন হরকারতুল জিহাদ আল ইসলামিয়া বাংলাদেশ (হুজি-বি) এবং আনসারউল্লাহ বাংলাটিমের (এবিটি) গ্রেপ্তারকৃত বোমা বিশেষজ্ঞদের জিজ্ঞাসাবাদে প্রাপ্ত তথ্যের উপর ভিত্তি করে তাদের আটক করা হয়। বিধি বহির্ভূতভাবে আটককৃত এ চার ব্যক্তি জঙ্গিদের বিস্ফোরকসহ নানাবিধ রাসায়নিক পদার্থ সরবরাহ করে আসছিল। এমনকি গত ৭ জুন জঙ্গিদের কাছ থেকে উদ্ধারকৃত প্রায় ৬ কেজি বিস্ফোরক ও অন্যান্য রাসায়নিক পদার্থও সরবরাহ করেছিল এ চার ব্যক্তি।

গ্রেপ্তারকৃতদের উদ্ধৃতি দিয়ে মনিরুল ইসলাম জানান, ঢাবির ল্যাব অ্যাসিস্ট্যান্ট বাবুল জানিয়েছেন- তাদের বিভাগের একজন প্রাক্তন ছাত্র যিনি বর্তমানে একটি কলেজের শিক্ষক পরিচয়ে তার কাছ থেকে বিস্ফোরক পদার্থ নিয়েছিলেন।

অন্যদিকে আটককৃত কেমিক্যাল ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তারা অধিক লাভের আশায় এসব কেমিক্যাল বিক্রি করেছিলেন। কিন্তু তারা জানতেন না যে, এগুলো বিস্ফোরক তৈরিতে জঙ্গিরা ব্যবহার করবে।

মনিরুল ইসলাম জানান, আটককৃত ব্যক্তিরা এখন যতো কথাই বলুক না কেন তারা আইন লঙ্ঘন করে এসব বিস্ফোরক বিক্রি করেছে। কারণ কেমিক্যাল বিক্রির লাইসেন্সে স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে কাদের কাছে কিভাবে এসব কেমক্যাল বিক্রি করতে হবে। কিন্তু আটককৃতরা তা না করায় বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হবে।

গোয়েন্দা ও অপরাধ তথ্য (দক্ষিণ) বিভাগের ডিসি মো. মাশরুকুর রহমান খালেদের নির্দেশনায় এডিসি মোহাম্মদ ছানোয়ার হোসেনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার টিমের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. আহসান হাবীবের নেতৃত্বে অভিযানটি পরিচালিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

178 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ