সেপ্টেম্বর ২২, ২০১৫ ১০:৫২ অপরাহ্ণ

কমলগঞ্জে রাতের আঁধারে প্রেমিকার ঘরে প্রেমিক , আড়ালে বন্ধু খুন


কুলাউড়া সংবাদ, মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৫:: আসাম বন্ধুত্ব। সাইফুল নামের ২২ বছরের তরুণ সঙ্গে বন্ধুত্ব করলেন ৩৫ বছর বয়সী ৩ সন্তানের জনক রেজাক মিয়া। আর এ আসাম বন্ধুত্বই যেন কাল কলো তার। তরুণ বন্ধু সাইফুল রাতের আঁধারে তার প্রেমিকার সঙ্গে দেখা করতে যাবে। এতে রেজাক মিয়াকেও নিয়ে যাবে বলে জানায়।

যেই সিদ্ধান্ত সেই কাজ। রাতের আঁধারে দুই বন্ধু মিলে চলে গেল প্রেমিকার বাড়িতে। সেখানে গিয়ে প্রেমিক সাইফুল ঢুকলেন তরুণীর ঘরে। আর বাইরে দাঁড়ালেন বন্ধু রেজাক মিয়া। একপর্যায়ে বাড়ির লোকজন খোঁজ পেয়ে তাদের ঘিরে ফেলে। গণপিটুনি দেয় বাইরে দাঁড়ানো বন্ধুকে। পরে ঘর থেকে বের করে নিয়ে আসে প্রেমিককে। তাকেও দেয়া হয় গণপিটুনি। এতে গরুতর জখম হয়ে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন ৩ সন্তানের জনক রেজাক মিয়া।

এমনই ঘটনা ঘটেছে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ছনগাঁও মণিপুরী পল্লীতে। পরে স্থানীয়রা ঘটনাকে ডাকাতি বলে হত্যার বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে। এ মৃত্যুর ঘটনায় প্রেমিকার বাবাসহ ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কমলগঞ্জের ছনগাঁও মণিপুরী পল্লীতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত রেজাক মিয়া পূর্বজালালপুর গ্রামের মৃত উম্মর আলীর ছেলে।

স্থানীয় ও পুলিশ জানায়, রিজার্ভ ফরেস্ট এলাকার ছনগাঁও গ্রামের কদর আলীর বাড়িতে সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কদর আলী মেয়ের প্রেমিক সাইফুল ইসলাম তার বন্ধু রেজাক মিয়াকে নিয়ে যায়। এ সময় সাইফুল তার বন্ধু রেজাক মিয়াকে বাইরে রেখে ঘরে প্রবেশ করেন। বিষয়টি টের পেয়ে প্রেমিকার বাবা ও তার স্বজনরা তাদের দু’জনকে আটক করে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এ সময় মুমূর্ষু আবস্থায় তাদের স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের শারিরিক অবস্থার অবনতি দেখে ডাকাত ডাকাত বলে চিৎকার শুরু করে। তাদের চিৎকারে এলাকাবাসী এসে আরেক দফা গণপিটুনি দিয়ে পুলিশে খবর দেয়।

খবর পেয়ে রাত ১২টার দিকে পুলিশ গুরুতর আহত রেজাক ও সাইফুলকে উদ্ধার করে কমলগঞ্জ উপজেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রেজাককে মৃত ঘোষণা করেন এবং সাইফুলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

এ ব্যাপারে কমলগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক  জানান, প্রেম ঘটিত বিষয় নিয়ে ওকে হত্যা করে এলাকাবাসী ডাকাতি বলে ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করছে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দহে কদর আলীসহ ৬ গ্রামবাসীকে আটক করা হয়েছে। লাশটি ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে এবং মামলার প্রস্তুতি চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

304 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ