আগস্ট ২২, ২০১৫ ৩:১৮ পূর্বাহ্ণ

এক কোটির টার্গেট নিয়ে হজে যাচ্ছিল তিন পকেটমার


প্রতিবছর হাজীদের পকেট কাটাসহ চুরির পরিকল্পনায় হজ মৌসুমে সৌদি পাড়ি জমায় পকেটমারদের একটা গ্রুপ। বৃহস্পতিবার মালিবাগ রেলগেট এলাকায় অভিযান চালিয়ে এই চক্রের ছয় সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এ বছর তিনজন পকেটমার হজে যাবার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিলেন। হজে যেতে এ গ্রুপের এবারের বাজেট ছিল ১২ লক্ষ টাকা, আর আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল এক কোটি টাকা।

একইদিন শাহবাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে অজ্ঞান পার্টির ছয় সদস্যকে আটক করে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে আটক পকেটমারদের হাজির করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, প্রতি বছরই পকেটমারদের একটা বা দুটো গ্রুপ হজে গিয়ে হাজীদের পকেট কাটাসহ নানা ধরনের অপরাধ কর্মকাণ্ড করে থাকে। এ বছর এ চক্রের তিন সদস্য বাংলাদেশ থেকে হজে যাচ্ছিলেন পকেটমারের জন্য।

এজন্য পরিকল্পনাকারী হাজী আব্দুল গফুর ১২ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছিলেন। এ বছর হজ থেকে তার আয়ের টার্গেট ছিল এক কোটি টাকা।

আটকরা হলেন- বিনিয়োগ ও পরিকল্পনাকারী হাজী আব্দুল গফুর, দলনেতা মো. টুটুল বিশ্বাস, সেকেন্ড-ইন-কমান্ড কাজী সারোয়ার জামাল ওরফে নেতাজী, আলহাজ্ব মো. ইব্রাহিম, মো. মনির হোসেন, মো. সাইফুল ইসলাম ওরফে বাচ্চু।

এদের মধ্যে আলহাজ্ব মো. আব্দুল গফুর, আলহাজ্ব মো. টুটুল বিশ্বাস ওরফে সুমন এ বছর পকেটমারের উদ্দেশ্যে হজ পালন করতে যাচ্ছিলেন। আরেক পকেটমার রওশনও তাদের সঙ্গে সৌদি আরব যাওয়ার পরিকল্পনা করেছিলেন। তবে সে এখন পলাতক।

মনিরুল ইসলাম জানান, আলহাজ্ব মো. টুটুল বিশ্বাস এর আগে সৌদি আরবে ধরা পড়েছিলেন এবং দু’বছর কারাগারে ছিলেন। এবার এই তিনজন হজে যাওয়ার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ করেছিলেন।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক ৩-৪টি গ্রুপ রয়েছে, যারা প্রতিবছর হজে গিয়ে নানা ধরনের অপরাধ কর্মকাণ্ড করে থাকেন। এমনকী বাংলাদেশ থেকে যাওয়া কিছু রোহিঙ্গা নাগরিকও সেখানে গিয়ে নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড করেন।

এতে করে দেশের সুনাম ক্ষুণ্ন হচ্ছে বলেও দাবি করেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এ সম্পর্কে বিমানবন্দর ইমিগ্রেশন পুলিশের পক্ষ থেকে সতর্কতামূলক কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে মনিরুল ইসললাম বলেন, আমরা বিষয়টি সম্পর্কে ইমিগ্রেশন কর্তৃপক্ষকে জানাবো। তারা কোনো ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানালে আমরা সেভাবেই পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।

এদিকে, বৃহস্পতিবার সকালে শাহবাগ এলাকা থেকে অজ্ঞান পার্টির ছয় সদস্যকে আটক করে পুলিশ। তারা হলেন- মো. নুরুল আনোয়ার, মো. সুজন খান, মো. আবুল বাশার, মো. আবুল হাসান, মো. আক্তার হোসেন, মো. আবুল কালাম।

একই সংবাদ সম্মেলনে মনিরুল ইসলাম জানান, এই গ্রুপের ৮-১০ জন সদস্য ও আশেপাশের জেলায় প্রতিদিন পাবলিক বাসের যাত্রীদের আচার ও অন্যান্য খাবার খাইয়ে অজ্ঞান করে সর্বস্ব নিয়ে বাস থেকে নেমে যায়। এই গ্রুপের নেতৃত্বে আছেন নুরুল আনোয়ার এবং সেকেন্ড-ইন-কমান্ড মো. সুজন খান।

নিউজটি শেয়ার করুন

178 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ