আগস্ট ২১, ২০১৫ ৭:০৪ অপরাহ্ণ

আজ ভয়াল ২১ আগস্ট


আজ সেই ভয়াল-বিভীষিকাময় ও রক্তাক্ত ২১ আগস্ট। ইতিহাসের সেই মর্মস্পর্শী বারুদ আর রক্তমাখা বীভৎস রাজনৈতিক হত্যাযজ্ঞের এক অতি কলংকময় দিন। হত্যাযজ্ঞ-রক্তস্রোত-ধ্বংস ও নারকীয় গ্রেনেড হামলার বার্ষিকী আজ। ২০০৪ সালের এই দিনে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সন্ত্রসবিরোধী এক জনসভায় শেখ হাসিনার ওপর সভ্যজগতের অকল্পনীয় এক নারকীয় গ্রেনেড হামলা চালানো হয়। সেদিনে সেই গ্রেনেডের হিংস্র দানবীয় সন্ত্রাস আক্রান্ত করে মানবতাকে। রক্ত-ঝড়ের প্রচণ্ডতা সেদিন মলিন করে দেয় বাংলা ও বাঙালীর মুখ। বঙ্গবন্ধু এভিনিউ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় প্রাঙ্গণ সেদিন মুহূর্তেই পরিণত হয় এক ভয়ঙ্কর-দানবীয় মৃত্যুপুরীতে। প্রসঙ্গত: ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের সমবেশে গ্রেনেড হামলায় বর্তমান রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সহধর্মীনী ও তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভনেত্রী আইভি রহমানসহ ২৪ জন নিহত ও শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছিলেন।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, জতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বর্বরোচিত হত্যাকাণ্ডের দু:স্বহস্মৃতি বিজড়িত শোকাবহ-রক্তাক্ত আগস্ট মাসেই আরেকটি ১৫ আগস্ট ঘটানোর টার্গেট থেকে ঘাতক হায়েনার দল গ্রেনেড দিয়ে রক্তস্রোতের বন্যা বইয়ে দিয়েছিল বঙ্গবন্ধু এ্যাভিনিউতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের রাস্তায়। ১৯৭৫ সালের মতোই সেই টার্গেটও ছিল এক ও অভিন্ন। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনাসহ আওয়ামী লীগকে সম্পর্ণ নেতৃত্বশূন্য ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধ্বংস করতেই ঘাতকরা চালায় এই দানবীয় হত্যাযজ্ঞ। জাতির সামনে আবারও স্পষ্ট হয়ে ওঠে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির একাত্তরের পরাজয়ের প্রতিশোধস্পৃহা। বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকাকালে খোদ রাজধানীতে প্রকাশ্য দিবালোকে চালানো হয় ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ভয়াল ও বীভৎস গ্রেনেড হামলা।

নিউজটি শেয়ার করুন

1216 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ