মার্চ ২৪, ২০১৮ ৬:১৩ অপরাহ্ণ

সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণে আলোচনা সভা


ডেক্স রিপোর্টঃ সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আয়োজনে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত (এল.ডি.সি) স্ট্যাটাস থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জন করায় শনিবার বিশেষ সেবা সপ্তাহ ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে। উইমেন্স মেডিকেল কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল ডা. ফজলুর রহিম কায়সারের সভাপতিত্বে ও ডার্মাটোলজি বিভাগের কনসালটেন্ট ডা. হিমাংসু শেখর দাশের পরিচালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন হলি সিলেট হোল্ডিং লিমিটেডের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. এম এ মতিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন হলি সিলেট হোল্ডিং লিমিটেডের এমডি ডা.শাহ মো. আব্দুল আহাদ, উইমেন্স মেডিকেল কলেজের প্রফেসর ডা. এম এ সালাম, প্রফেসর ডা. মৃগেন কুমার দাশ, প্রফেসর ডা. নজরুল ইসলাম ভূইয়া, উইমেন্স নাসিং ইনস্টিটিউট অধ্যক্ষ ড. নীলিমা মজিদ। বক্তব্য রাখেন ডা. মো.ইশফাক জামান সজিব, ৫ম বর্ষের ছাত্রী তানিয়া তাবাসসুম।
সভায় ১৬ মার্চ জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি’র (সিডিপি) কাছ থেকে স্বল্পোন্নত দেশের স্ট্যাটাস থেকে বাংলাদেশ উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতির কথা উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থনৈতিক মুক্তির পথ দেখিয়েছেন। তার হাত ধরে দেশের মানুষের মাথাপিছু আয়, মানব সম্পদ সূচক ও অর্থনৈতিক ঝুঁকি সূচক (ইভিআই) এ তিনটি শর্ত পূরণ করে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উঠতে যাচ্ছে। মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হতে হলে যেসব সূচক অর্জন করতে হয় বাংলাদেশ তার সবই অর্জন করেছে। বক্তারা দেশের এ অগ্রযাত্রা স্বাধীনতা পরবর্তী উন্নয়নে সর্বোচ্চ মাইল ফলক হিসেবে অভিহিত করেন। স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উত্তরণে বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করে বক্তারা বলেন, স্বাস্থ্য খাতে সরকার ব্যাপক উন্নয়ন সাধন করায় সরকারী মেডিকেল কলেজের পাশাপাশি বেসরকারী মেডিকেল কলেজ স্থাপিত হওয়ায় মানুষ উন্নত চিকিৎসা সেবা ভোগ করার সুবিধা পেয়েছে। সভায় কলেজের বিভিন্ন বিভাগের চিকিৎসক ও ছাত্রীরা অংশ গ্রহন করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

139 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ