অক্টোবর ৮, ২০১৭ ১০:৪৮ অপরাহ্ণ

৯৯৯-এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু নভেম্বরে


৯৯৯’ নম্বরে ফোন করে জরুরি প্রয়োজনে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স পাওয়ার সেবা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হচ্ছে নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে। এতদিন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের অধীনে পরীক্ষামূলকভাবে এই সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হলেও আনুষ্ঠানিক পথচলায় নেতৃত্ব দেবে পুলিশ বিভাগ।

রোববার সচিবালয়ে তথ্য ও প্রযুক্তিভিত্তিক ৯৯৯ জরুরি সেবার জাতীয় কল সেন্টার স্থাপন শীর্ষক প্রকল্প বিষয়ক সভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এ তথ্য জানান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিদেশে একটি নম্বরে কল দিলেই জরুরি সেবাগুলো হাতের কাছে এসে যায়। আমাদের ৯৯৯ নম্বরে সেবা পৃথক ইউনিটের মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে আসছে। সবগুলো ইউনিট এক জায়গায় এনে আমরা ৯৯৯ নম্বরে সব জরুরি সেবা পাওয়া নিশ্চিত করব।’

‘এটার সুবিধা হলো একজন মানুষ যখনই বিপদে পড়বে, আগুন, অ্যাম্বুলেন্স কিংবা পুলিশি সেবা যখন চাইবেন তখনই ৯৯৯-তে কল করে এই সুবিধা পাবেন।’

সভায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ‘গত ১৬ অক্টোবর থেকে ৯৯৯ নম্বরটি পরীক্ষামূলকভাবে চলমান। আমরা গবেষণামূলক কার্যক্রম হাতে নিয়েছিলাম। আমাদের আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের নির্দেশনা ছিল। অনেক দশক ধরে আমেরিকা ও ব্রিটেন ১১১, ৯৯৯ ও ৯১১ এগুলো ব্যবহার করেছে। আমরা কর্মসূচি হাতে নিয়েছিলাম যে আমাদের দেশে ইমার্জেন্সি সার্ভিসটা করা দরকার। সেজন্য গত এক বছর ধরে প্রায় ৩৩ লাখ কল রিসিভ করেছি। যেটা পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, হেলথ ডিপার্টমেন্টের মাধ্যমে সমঝোতার মাধ্যমে। আমরা এসব তথ্য ও রিসার্চ নিয়ে একটি বই করেছি। এই রিসার্চ পেপারসহ বাংলাদেশের যে মডেলটা আমরা ৯৯৯ ইমার্জেন্সি সার্ভিসের জন্য করব, এটা আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করব।’

‘পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি (আইসিটি) উপদেষ্টার নির্দেশনায় আমরা বিশ্বের আধুনিকতম একটা ইমার্জেন্সি সার্ভিস সেন্টার করতে চাই- যেখানে পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও অ্যাম্বুলেন্স এই তিনটি জরুরি সেবা মানুষ পাবে’-বলেন জুনাইদ আহমেদ পলক।

তিনি আরও বলেন, ‘যে কেউ ৯৯৯ নম্বরটাকে তার সবচেয়ে কাছের বন্ধু হিসেবে মনে করে। তথ্য ও ডিজাইনটা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে হস্তান্তরের পর যত ধরনের সহযোগিতা করার আমরা করব। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আজ থেকে এই ৯৯৯ সার্ভিসে নিজেরা নেতৃত্ব দিয়ে আগামী দিনে বিশ্বের অন্যতম একটি সার্ভিস সেন্টার হিসেবে গড়ে তুলবে।’

পরীক্ষামূলকের পর ৯৯৯ এর মাধ্যমে জরুরি সেবা পাওয়ার বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে কবে চালু হবে জানতে চাইলে উপস্থিত পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক বলেন, ‘এটা মেইনলি পুলিশ অপারেট করবে। বিশ্বব্যাপী সব জায়গায়ই ৯৯৯ সার্ভিসে পুলিশ কাজ করে। এখানে একটা সেন্টার হবে। আমাদের সঙ্গে ইন্টারফেস থাকবে ফায়ার ব্রিগেড ও হেলথ সার্ভিসের। যেখানে ফায়ার ব্রিগেড প্রয়োজন হবে আমরা ডেসপাস করে দেব ফর স্পিডি অ্যাকশন, যেখানে অ্যাম্বুলেন্স দরকার সেটাও আমার ডেসপাস করে দেব।’

শহীদুল হক বলেন, ‘কল সেন্টার অলরেডি হয়ে গেছে, পুলিশ কন্ট্রোল রুমে একটি ফ্লোর হয়ে গেছে। আশা করছি নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহে দুই মন্ত্রী মহোদয়ই থাকবেন, আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করব।’

নিউজটি শেয়ার করুন

74 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ