জানুয়ারি ১০, ২০১৬ ৫:৪৪ অপরাহ্ণ

লাখো কণ্ঠে আমিন…


ইহকাল ও পরকালের শান্তি এবং মুসলিম উম্মাহর উত্তরোত্তর সমৃদ্ধি, অগ্রগতি এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে এবারের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব। আখেরি মোনাজাত চলাকালে কয়েক লাখ মুসলি্লর আমিন আমিন ধ্বনিতে মুখরিত হয়ে উঠে তুরাগপাড়।

বেলা ১১টায় মোনাজাত শুরু করেন তাবলিগ জামাতের শীর্ষ মুরুব্বি ও দিল্লির মাওলানা মোহাম্মদ সা’দ। মোনাজাত পরিচালনা করা মাওলানা সা’দের দাদা মাওলানা ইউসুফ আলীও তাবলিগের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। সা’দ ২০১৫ সালের বিশ্ব ইজতেমায় সর্বপ্রথম আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন।

এর আগে ফজরের নামাজের মাধ্যমে শেষ দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। আখেরি মোনাজাত উপলক্ষে ভোর থেকেই শীত উপেক্ষা করে লাখো লাখো মুসুল্লি মহাসড়কে হেঁটে ও ট্রেনে করে টঙ্গীর ইজতেমা ময়দানে এসে সমবেত হন। বিপুল সংখ্যক নারী মুসুল্লিও মোনাজাতে অংশ নিতে ইজতেমার আশপাশের সড়কে সকাল থেকেই অবস্থান নেন। ভোর থেকেই মুসল্লিরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে খবরের কাগজ বিছিয়ে মোনাজাতের জন্য বসে পড়েন।

এ সময় তারা ইসলামের আমল, আকীদা ও দাওয়াত বিষয়ে দেশি-বিদেশি মুসুল্লিদের বয়ান শুনেন। বয়ান করেন ভারতের মুরব্বি ওয়াসেকুল ইসলাম।

এরপর শুরু হয় আখেরি মোনাজাত। প্রায় ২০ মিনিট স্থায়ী এ মোনাজাতে মুসলি্লদের আমিন আমিন ধ্বনিতে পুরো ইজতেমা ময়দান প্রকম্পিত হয়ে ওঠে। গুনাহ মাফের জন্য আবালবৃদ্ধবনিতার চোখের পানিতে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

ময়দানে ঢুকতে না পেরে কয়েক লাখ মানুষ কামাড়পাড়া সড়ক ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে পুরনো খবরের কাগজ, পাটি, সিমেন্টের বস্তা কিংবা পলিথিন বিছিয়ে আখেরি মোনাজাতে অংশ নেন। আশপাশের বাসা, অফিস, দোকানের ছাদে এমনকি তুরাগ নদীতে নৌকায়ও অনেক মুসলি্ল অবস্থান নিয়ে মোনাজাত করেন।

মোনাজাত শেষে যানজট :
আখেরি মোনাজাত শেষ হওয়ার পরপরই বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়া মানুষ একযোগে নিজ নিজ গন্তব্যে ফেরার চেষ্টা করেন। মুসলি্লরা শুরু করে দেয় হুড়োহুড়ি এবং আগে যাওয়ার প্রতিযোগিতা। এতে টঙ্গীর আশপাশের সড়ক-মহাসড়কগুলোতে সৃষ্টি হয় দীর্ঘ যানজট। ফলে আবারো পায়ে হেঁটে রওনা দেয় বিপুলসংখ্যক মুসলি্ল।

উল্লেখ্য, ১৯৪৬ সাল থেকে বাংলাদেশে বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। শুরুতে ইজতেমা হতো ঢাকার কাকরাইল মসজিদে। এরপর ‘৪৮-এ চট্টগ্রামের হাজি ক্যাম্পে এবং ‘৫৮- তে নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। ইজতেমায় লোক সমাগম বাড়তে থাকায় ১৯৬৬ সালে গাজীপুরের টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে শুরু হয় বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন। এরপর থেকে এখানেই ইজতেমা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

367 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ