আগস্ট ১, ২০১৬ ৯:৫৫ অপরাহ্ণ

চলার পথ বন্ধুর হবেই : প্রধানমন্ত্রী


চলার পথ বন্ধুর হবেই। মানুষের জন্য কাজ করার পথ যে কণ্টকাকীর্ণ হবে সে কথা জেনেই আমি এই পথে এসেছি। এই চ্যালেঞ্জ নিয়েই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কাজ করে যাচ্ছে।

সোমবার (১ আগস্ট) শোকের মাসের শুরুতে কৃষক লীগ আয়োজিত ধানমণ্ডির বঙ্গবন্ধু জাদুঘরের সামনে এক আলোচনা সভায় বলছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেই ষড়যন্ত্রকারীরা ক্ষান্ত হয়নি। বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর তার চরিত্রহরণ করতেও এরা পিছপা হয়নি। তবে তাদের এসব ষরযন্ত্র দেশবাসী গ্রহণ করেনি।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আক্ষেপ করে বলেন, ‘দেশে ফেরার পর ৩২ নম্বরের বাড়িতে আমাকে ঢুকতে দেয়া হয়নি। মৃত পিতা-মাতা, ভাইদের জন্য মিলাদ-মাহফিল করতেও এই বাড়িতে আমাকে ঢুকতে দেয়নি জিয়াউর রহমানের সরকার। বাড়িতে ঢুকতে না পেরে আমরা বাড়ির সামনের রাস্তায় মিলাদ-মাহফিল করেছি।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ছোট ভাই রাসেল আমার সঙ্গে বিদেশ যেতে চেয়েছিলো। তখন মা যেতে দেয়নি। আমার সঙ্গে গেলে হয়তো রাসেল বেঁচে যেতো। ১৫ আগস্ট নির্মমভাবে নিহত হতো না সে।’

স্বাধীনতার বিপক্ষের দোসররা এখনো দেশের মানুষ ও ইতিহাস নিয়ে ছিনিমিনি খেলার চক্রান্ত করে চলেছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘দেশে নতুন উৎপাত জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস। এরাও স্বাধীনতা বিরোধীদের সৃষ্টি। তবে দেশবাসী আজ সতর্ক। আমরা নিশ্চয়ই সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদকে মুকাবেলা করতে পারবো। ইউরোপ-আমেরিকাসহ বিশ্বের অনেক জায়গাতেই এমন ঘটনা ঘটছে। জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ তাদের থেকে এগিয়ে।’

সর্বশেষ তিনি বলেন, ‘আল্লাহর কাছে দোয়া করি, বাবার স্বপ্নের বাংলাদেশ যেনো গড়ে যেতে পারি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

253 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ