আগস্ট ১৪, ২০১৬ ২:৪২ পূর্বাহ্ণ

কুয়েতে শ্রমশক্তি নিয়োগে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাবে বাংলাদেশ


সংবাদ ডেস্ক :: কুয়েতে শ্রমশক্তি বাংলাদেশ সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পাবে বলে দেশটিতে বাংলাদেশের নব-নিযুক্ত রাষ্ট্রদূত এস. এম. আবুল কালামকে আশ্বস্ত করেছেন কুয়েতের মহামহিম আমির শেখ সাবাহ্ আল-আহমেদ আল-জাবের আল-সাবাহ্।

গত ৯ আগস্ট মঙ্গলবার সকালে কুয়েতের আমিরি প্যালেস (বায়ান প্যালাসে) পরিচয়পত্র প্রদানকালে এক সৌজন্য সাক্ষাতে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সেখানে তিনি একথা বলেন।

সাক্ষাতৎকালে মহামহিম আমির বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতকে কুয়েতে স্বাগতম জানান এবং সকল প্রকার সাহায্য ও সহযোগিতার আশ্বাস দেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা উত্তর ১৯৭৩ সাল থেকে বাংলাদেশ-কুয়েত ভ্রাতৃপ্রতীম দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের কথা উল্লেখ করে বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সঙ্গে তাঁর ব্যক্তিগত সুসম্পর্ক ও পরিচয়ের কথাও শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন।

কুয়েতে বাংলাদেশের শ্রম বাজার সম্প্রসারণের অনুরোধের প্রেক্ষিতে কুয়েতে বিদেশি শ্রমশক্তি আমদানির ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিবেন মর্মে মহামহিম আমির নব-নিযুক্ত রাষ্ট্রদূতকে আশ্বাস প্রদান করেন।

কুয়েতে বাংলাদেশিদের ভূমিকা তথা ১৯৯১ সালে যুদ্ধবিধ্বস্ত কুয়েত পুর্নগঠনে বাংলাদেশের ভূমিকাকে কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করে মহামহিম আমির আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, ভবিষ্যতে দু’দেশের সম্পর্ক আরও বিস্তৃত ও জোরদার হবে।

বাংলাদেশ-কুয়েত দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের বিবিধ দিক যেমন ব্যবসা-বাণিজ্য বহুমুখীকরণ বিনিয়োগ বৃদ্ধি, সামরিক সহযোগিতা সম্প্রসারণ, সাংস্কৃতিক বন্ধন দৃঢ়করণ, বাংলাদেশিদের ভিসা সহজ করাসহ গভীরতর ও প্রসারিত কূটনৈতিক সম্পর্ক উন্নয়নে একসঙ্গে কাজ করার কথা ব্যক্ত করা হয়।

রাষ্ট্রদূত কুয়েতের আমিরকে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শুভেচ্ছা পৌঁছে দেন এবং রাষ্ট্রপতির পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালে মহামহিম আমির সুযোগমতো সুবিধাজনক সময় বাংলাদেশ সফর করবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এসময় কুয়েতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ সাবাহ্ আল-খালেদ আল-হামাদ আল-সাবাহ্ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া, বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলর (রাজনৈতিক) এসএম মাহবুবুল আলম, প্রতিরক্ষা এ্যাটাশে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসিমুল গনি, কাউন্সেলর (শ্রম) আবদুল লতিফ খান সাক্ষাৎকালে উপস্থিত ছিলেন। সকালে রাষ্ট্রদূতের সরকারি বাসভবন থেকে মোটর শোভাযাত্রা করে বায়ান প্যালেসে যান আবুল কালাম এবং সেখানে রাষ্ট্রদূতকে আমিরি গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

465 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ