জুলাই ১৭, ২০১৬ ১০:০৩ অপরাহ্ণ

কমলগঞ্জে বোমা তৈরিতে আঙ্গুল হারালো মাদরাসাছাত্র


ঘরের ভিতর হাত বোমা বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণে আঙ্গুল উড়ে গেছে জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার রজব মিয়া (১৬) নামে এক মাদ্রাসা ছাত্রের। ঘটনা ধামাচাপা দিতে গোপনে সিলেট এমএজি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে আহতকে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। গত শুক্রবার (১৫ জুলাই) জুমার নামাজের পর এ ঘটনাটি ঘটলেও কোনো কিছুই জানেন না থানা পুলিশ।

ওই ছাত্র ফুরবাড়ি চা বাগানের ১নং শ্রমিক বস্তির চাঁন মিয়া ওরফে চান্দু মিয়ার ঘরে তার ছেলে। সে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আখাউড়ার দৌলতকান্দিতে একটি মাদ্রাসায় পড়া শুনা করে।

রোববার (১৭ জুলাই) বেলা আড়াইটায় সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানা যায়, শুক্রবার (১৫ জুলাই) জুমার নামাজের পর ফুরবাড়ি চা বাগানের ১নং শ্রমিক বস্তির চাঁন মিয়া ওরফে চান্দু মিয়ার ঘরে হাত বোমা বানাচ্ছিল তার মাদ্রাসায় পড়ুয়া ছেলে ছাত্র রজব মিয়া। একপর্যায়ে আকস্মিকভাবে একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়ে তার হাতের আঙ্গুল উড়ে যায়।

বিস্ফোরণের পর বাগানের শ্রমিকদের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। এরপর চাঁন মিয়া গোপনে আহত ছেলেকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমামি মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করেন।

বস্তির খলিল মিয়া ও সুফিয়া বেগম জানান, শুক্রবার হঠাৎ বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। প্রথমে তারা মনে করেছিলেন হয়তো কোন বৈদ্যুতিক ট্রান্সফর্মার বিস্ফোরণ হয়েছে। পরে দেখেন চান মিয়ার ঘরে এ ঘটনাটি ঘটে। মাটির দেয়াল ও টিন শেড ঘরে ঘটনার আলামত নষ্ট করতে ঘরটি নতুন করে মাটি দিয়ে লেপে দেওয়া হয়েছে। ঘটনা সম্পর্কে মুখ খুলছেন না ফুলবাড়ি চা বাগান কর্তৃপক্ষও।

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি বলেন, সোমবার (১৮ জুলাই) চা বাগান পঞ্চায়েত কমিটির সঙ্গে বসে আলোচনা করেই বিষয়টি প্রশাসন জানানো হবে।

এতো বড় ঘটনা ঘটলেও এবিষয়ে এখনো কমলগঞ্জ থানা পুলিশ কিছু জানে না। তবে মৌলভীবাজারের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) বলেন, এ ধরনের কোন ঘটনা তারা জানেন না। তবে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

839 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ