জুলাই ১৪, ২০১৫ ৭:৫৭ অপরাহ্ণ

ইফতারের সময় জামিনে মুক্ত ফখরুল


কুলাউড়া সংবাদ, মঙ্গলবার , ১৪ জুলাই ২০১৫ ::

৬ মাসেরও বেশি সময় কারাগারে থেকে অবশেষে জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। মঙ্গলবার ইফতারের সময় তিনি মুক্তি পান। বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। জামিন পাওয়ার পর সেখানেই সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

ফখরুল বলেন, ‘আমি দেশবাসীকে ধন্যবাদ জনাই। আমার অন্ত্যরীণ অবস্থায় আমার অসুস্থতার খবর ‍তুলে ধরেছেন। এ ৬ মাসে আামার ১২ কেজি ওজন কমেছে। অন্তুত কিছুদিনের জন্য হলেও মুক্ত হয়েছে। চিকিৎসা নিয়ে দেশে ফিরে আসবো।’

ফখরুলকে দেয়া হাইকোর্টের জামিন আদেশ গতকাল সোমবার বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। সে মোতাবেক ৬ সপ্তাহের জামিন পেলেন তিনি। এই সময়ের মধ্যে ফখরুল চাইলে উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে পারবেন।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বছরপূর্তিকে কেন্দ্র করে সৃষ্ট রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যে গত ৬ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে থেকে আটক হন মির্জা ফখরুল। এরপর গাড়ি ভাঙচুর, পোড়ানো ও নাশকতার অভিযোগে রাজধানীর পল্টন ও মতিঝিল থানায় দায়ের করা সাতটি মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখায় পুলিশ। এইচএসসি পরীক্ষা ও সিটি নির্বাচনের হাওয়ায় বিএনপি অবরোধ-হরতাল থেকে সরে এলে কমে আসে রাজনৈতিক উত্তাপ। সরকার পতনের আন্দোলনে নেমে ব্যর্থ হয়ে এখন দল পুনর্গঠনে মনোযোগী হয়েছে দলটি। কারাগার থেকে মুক্তি পেলে মির্জা ফখরুল বিএনপির পূর্ণাঙ্গ মহাসচিব হচ্ছেন বলে গুঞ্জন রয়েছে। ২০১১ সালের ১৬ মার্চ খোন্দকার দেলোয়ার হোসেনের মৃত্যুর পর থেকে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব হিসেবে রয়েছেন ফখরুল।

ফখরুলের আইনজীবী ও তার পরিবারের সদস্যরা বলেছিলেন, মির্জা ফখরুল ইসলামের হৃদযন্ত্রে চারটি ব্লক রয়েছে, এর তিনটিতে রিং বসানো হয়েছে। অর্থাৎ ৮০ ভাগ ব্লক হয়ে গেছে তার। এখন তার গলার ধমনিতে (নার্ভ) প্রতিবন্ধকতা ধরা পড়েছে।

সুত্রঃ বাংলা মেইল

নিউজটি শেয়ার করুন

343 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ