জুলাই ৩১, ২০১৫ ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

জঙ্গিদের হাত থেকে ৭০ যাত্রীকে বাঁচানোর নায়ক


কুলাউড়া সংবাদ,   শুক্রবার ৩১ জুলাই ২০১৫ 

 

জঙ্গিদের একে ৪৭ উপেক্ষা করে ৭০ বাসযাত্রীকে বাঁচিয়েছে পাঞ্জাব রোডওয়েজের বাসচালক নানক চাঁদ শর্মা। জঙ্গি এবং পুলিশের পাল্টা গুলির মধ্যে যে কারও প্রান চলে যেতে পারত। এমন অবস্থায় মাথা ঠা-া রেখে ৭০ জন যাত্রীকে বাঁেিয়ছেন তিনি। হিন্দুস্তান টাইম্স। সাহসিকতার জন্য নানক চাঁদ শর্মাকে পুরস্কার দিতে যাচ্ছে পাঞ্জাব সরকার। পাঞ্জাবের গুরদাসপুরে তখন সবে জঙ্গি হামলা শুরু হয়েছে। জঙ্গিরা এলোপাথাড়ি গুলি চালিয়ে হত্যালীলায় মগ্ন। ওই সময়েই ৭৫ জন যাত্রী নিয়ে ঘটনাস্থলে বাসচালক নানকচাঁদ শর্মা। জঙ্গিদের বন্দুকের নল তখন তার বাসের দিকে। চলছে গুলি। বাস থেকে নেমে পালিয়ে যাওয়ার কথা ভাবেননি তিনি। বরং ভাবতে শুরু করেন, কীভাবে যাত্রীদের বাঁচাবেন। মাথা ঠা-া রেখে গতি বাড়ালেন বাসের। গুলির মধ্যে দিয়েই ছোটালেন বাস। সোজা নিকটবর্তী সরকারি হাসপাতাল। বাসের ৭০ জন যাত্রীর মধ্যে কয়েকজনের শরীরে জঙ্গিদের গুলি ছুঁয়ে বেরিয়ে যায়। সব আহত যাত্রীদের হাসপাতালে ভর্তি করেই পুলিশকে ফোন করেন নানক। নানকের কথায়, ‘আমার বাসে ৭৫ জন যাত্রী ছিলেন। আমি ভাবলাম এঁদের জীবন বাঁচানো আমার দায়িত্ব। তাই বাস থামাইনি।’ গত সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টা নাগাদ হামলা চালায় জঙ্গিরা। সেই সময় অসাধারণ বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দেন নানক। পাঞ্জাব রোডওয়েজের জেনারেল ম্যানেজারের কথায়, ‘চালকের সাহসিকতার জন্যই এতগুলো জীবন বাঁচল। না-হলে যাত্রীরা অনায়াসেই জঙ্গিদের লক্ষ্য হয়ে যেত।’ শুধু পাঞ্জাবেই নয়, গোটা দেশেই নানক এখন হিরো। যদিও এত দুঃসাহসিক কাজের পরেও এতটুকু অহংকার জন্মায়নি নানকের মনে। তার কথায়, ‘এটা আমার কর্তব্য। আমি ওই রুটে দীর্ঘ ৫ বছর ধরে বাস চালাচ্ছি।’

নিউজটি শেয়ার করুন

193 বার মোট পড়া হয়েছে সংবাদটি
error: আপনি কি খারাপ লোক ? কপি করছেন কেন ?? হাহাহ